প্রতিদ্বন্দ্বী সার্চ ইঞ্জিনগুলোকে অ্যান্ড্রয়েডে 'ডিফল্ট' সুবিধা দিতে সম্মত গুগল

শনিবার, আগস্ট 03 2019 অ্যালফাবেট ইনকর্পোরেটেড মালিকানাধীন গুগল, এখন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বী সার্চ ইঞ্জিনগুলোকে ইউরোপের নতুন অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে ডিফল্ট সার্চ ইঞ্জিন হিসাবে প্রতিযোগিতা করার অনুমতি দেবে! তবে এই সুবিধার জন্য অর্থ গুণতে হবে তাদেরকে।

শুক্রবার এক ঘোষণায় গুগল জানিয়েছে, তারা অন্য সার্চ ইঞ্জিনদের জন্য ডিভাইসে একটি চয়েজ স্ক্রিনে স্পট বা জায়গা নিলাম করার পরিকল্পনা করেছে, যা থেকে ব্যবহারকারীরা তাদের পছন্দ অনুযায়ী সার্চ ইঞ্জিন নির্বাচন করতে পারবেন।

অবশেষে প্রতিদ্বন্দ্বী সার্চ ইঞ্জিনগুলোকে অ্যান্ড্রয়েডে 'ডিফল্ট' সুবিধা দিতে সম্মত গুগল
credit : reuters


অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমে প্রতিদ্বন্দ্বী সার্চ ইঞ্জিনগুলোকে ব্লক করে, ক্রোম ব্রাউজার ও সার্চ অ্যাপ প্রি-ইন্সটল করায় গত বছর ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন গুগলকে ৪.৮১ বিলিয়ন বা ৪৮১ কোটি মার্কিন ডলার জরিমানা করেছিল! এর এক বছর পরেই এই ঘোষণাটি দিলো আমেরিকান সার্চ ইঞ্জিন জায়ান্ট গুগল।

এ ছাড়া ইউরোপীয় ইউনিয়ন গুগলকে তখন নির্দেশ দিয়েছিল, প্রতিযোগিতা বিরোধী (যেমন: অন্য সার্চ ইঞ্জিনকে ব্লক করা, ব্যবহারকারীকে ক্রোম ব্রাউজার, গুগল সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহারে বাধ্য করা) কর্মকান্ড বন্ধ করতে অথবা অ্যালফাবেট কোম্পানির সারা বিশ্বে দৈনিক আয়ের ৫% জরিমানা হিসেবে প্রদান করতে হবে।

গুগল একটি ব্লগ পোস্টের মাধ্যমে জানিয়েছে যে, ২০২০ সালের শুরুর দিক থেকে ইউরোপের ব্যবহারকারীরা যখন একটা নতুন অ্যান্ড্রয়েড ফোন চালু করবে, তখন গুগল সহ চারটি অপশন থেকে একটি ডিফল্ট সার্চ ইঞ্জিন বেছে নিতে সক্ষম হবে।

এই অপশনে গুগলের সাথে যে প্রতিদ্বন্দ্বী সার্চ ইঞ্জিনগুলো থাকবে, তারা কিন্তু ফ্রিতে স্থান পাবে না! গুগলকে অর্থ দিয়েই জায়গাটা পেতে হবে! এক্ষেত্রে, প্রতিদ্বন্দ্বী সার্চ ইঞ্জিনগুলো প্রতিটি পৃথক দেশের জন্য, পৃথক নিলামের চারটি বিকল্পের মধ্যে গুগলে যোগদানের জন্য আবেদন করতে পারবে অর্থের বিনিময়ে।

গুগলের কিছু প্রতিদ্বন্দ্বী এই পরিকল্পনাটি ভালোভাবে গ্রহণ করেনি! অবশ্য এর মাধ্যমে গুগল হয়তো এক ঢিলে দুই পাখি মারতে চেয়েছে! এক দিকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের আদেশ মানা, অপর দিকে মুনাফা বাড়ানোর নতুন ক্ষেত্র তৈরী করা!

জার্মান সার্চ ইঞ্জিন ক্লাইকজেজের প্রধান নির্বাহী মার্ক আল-হেমস আরও বলেন, ‘নিলামে যদি সর্বোচ্চ অর্থদাতা জিতে এবং অন্যদিকে যদি সবচেয়ে সেরা সার্চ ইঞ্জিন হেরে যায়, তাহলে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় ব্যবহারকারীরাই!’

নিজেদের মুনাফা থেকে সারা বিশ্বে গাছ লাগানোর জন্য পরিচিত সার্চ ইঞ্জিন ‘ইকোশিয়া’ বলছে, ‘আমরা যদি নিলামে প্রবেশ করা এবং অ্যান্ড্রয়েডে সার্চ ইঞ্জিন বিকল্প হওয়ার সুযোগের জন্য গুগলকে অর্থ প্রদান করার সিদ্ধান্ত নিই, তবে এটি সম্ভবত লক্ষ লক্ষ গাছের ব্যয় হবে যা আমরা অন্যথায় রোপণ করতে পারতাম!’ অন্যদিকে, চেক সার্চ ইঞ্জিন ‘সেজনাম’ বলেছে, ‘এর কী কী প্রভাব পড়বে তা এখনো পরিষ্কার নয়।’

অবশ্য এই বিষয়ে গুগলের ভিন্নমত। তারা নিলাম প্রক্রিয়াটিকে, ব্যবহারকারীদের জন্য সার্চ ইঞ্জিনকে অপশন হিসেবে দিতে ‘সুষ্ঠ পদ্ধতি’ হিসেবে বর্ণনা করেছে। এদিকে ইউরোপীয় কমিশন প্রক্রিয়াটি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণের পরিকল্পনা করেছে।
share on