হুয়েইয়ের ১০ মিলিয়ন পি৯ ও পি৯ প্লাস ফোন বিক্রি, কোম্পানির নির্ধারিত বার্ষিক লক্ষ্য স্পর্শ
হুয়েইয়ের ১০ মিলিয়ন পি৯ ও পি৯ প্লাস ফোন বিক্রি, কোম্পানির নির্ধারিত বার্ষিক লক্ষ্য স্পর্শ
হুয়েইয়ের ১০ মিলিয়ন পি৯ ও পি৯ প্লাস ফোন বিক্রি, কোম্পানির নির্ধারিত বার্ষিক লক্ষ্য স্পর্শ
হুয়েইয়ের ১০ মিলিয়ন পি৯ ও পি৯ প্লাস ফোন বিক্রি, কোম্পানির নির্ধারিত বার্ষিক লক্ষ্য স্পর্শ


হুয়েই এখন স্মার্টফোনের দুনিয়ায় একটি পরিচিত নাম। কোম্পানিটি যখন স্মার্টফোন তৈরির কথা ভেবেছে তখন তারা উজ্জ্বল ধাতব, আকর্ষণীয় দেখতে এমন স্মার্টফোনের কথাই ভেবেছে। তারা আর এখন সেই ফোর্স টাচ বা ডুয়েল ক্যামেরার প্রযুক্তি বিষয়ক পরীক্ষা নিরীক্ষা নিয়ে পড়ে থাকতে রাজি নয়। এ বছর হুয়েই পি৯ ফ্ল্যাগশীপ ফোনটির জন্যে লেইকার সাথে অংশীদারিত্বে একটি ডুয়েল ক্যামেরা তৈরি করেছে। এই ক্যামেরার বৈশিষ্ট্যের কারণে পি৯ ফোনটিকে একটি আগাগোড়া নতুন ফ্ল্যাগশীপ ফোন বলে মনে হয়।

এক হিসেবে আমরা জানতে পেরেছি যে, হুয়েই গত অক্টোবরে তাদের সব ধরণের ১০০ মিলিয়ন ফোন বিশ্ববাজারে বিক্রি করেছে। অথচ এই একই সংখ্যক ফোন তারা পুরো ২০১৫ ধরে বিক্রি করেছিল। তাই নির্দ্বিধায় বলা চলে যে, ২০১৬ কোম্পানিটির জন্যে ভালোই গেছে।

গত ২০১৫ তে একটি ভালো ফল লাভের পরে হুয়েই ২০১৬ তে বিক্রয় মাত্রা নির্ধারণ করেছিল ১৪০ মিলিয়ন। কোম্পানির সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ইউ চেংডং সম্প্রতি তাদের সেই লক্ষ্যমাত্রা বিক্রি হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন। যদি হুয়েই বিক্রিতে তাদের সর্বমোট লক্ষ্যমাত্রা স্পর্শ করে তবে পি৯ ও পি৯ প্লাস অবশ্যই তার বিক্রয় লক্ষ্য মাত্রা ১০ মিলিয়ন অর্জন করেছে। কোম্পানিটি আশা করছে যে, ২০১৭ তে উত্তরসূরি আসার আগেই আন্তর্জাতিক বাজারে এই দুটো ফোন বিক্রিতে ১২ মিলিয়নের ঘর স্পর্শ করবে।

সংখ্যাটা ভালো শোনালেও আসলে ফোন দুটির বিক্রি কেমন ছিল বুঝতে আমাদের প্রতিদ্বন্দ্বী ফোন কোম্পানির ফোনগুলি কেমন সংখ্যায় বিক্রি হয়েছে তা জানতে হবে। স্যামসাং তার গ্যালাক্সি এস৭ ফোন অবমুক্তির প্রথম মাসে বিক্রি করেছে ১০ মিলিয়ন আর অ্যাপেল অবমুক্তির প্রথম ছুটির দিনে বিক্রি করেছে ১৩ মিলিয়ন আইফোন ৬এস ও ৬এস প্লাস। সে কারণে হুয়েইকে সে সংখ্যায় পৌঁছাতে এখনও চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে যেন তারা বাজারে ও ক্রেতার মনে সমান ভাবে প্রভাব বিস্তার করে রাখতে পারে।